মঙ্গলবার | ০১ ডিসেম্বর, ২০২০
বান্দরবানে

মারমা কিশোরের হাতে তৈরি প্রতিমাতে হিন্দু বাড়িতে চলছে দুর্গোৎসব

প্রকাশঃ ২৫ অক্টোবর, ২০২০ ০৪:১৭:১৩ | আপডেটঃ ৩০ নভেম্বর, ২০২০ ০৬:৫৬:৪১
সিএইচটি টুডে ডট কম, বান্দরবান। কোন অভিজ্ঞ সম্পন্ন শিল্পি নয়, ক্ষুদ্র নৃগোষ্টির মারমা সম্প্রদায়ের ষষ্ঠ শ্রেণিতে পড়ুয়া প্রতিভাবান এক ক্ষুদে শিল্পীর হাতে তৈরি প্রতিমাতেই এবারে বান্দরবানের মধ্যম পাড়ার ৪নং ওর্য়াড এর নদীর পাড় এলাকার এক হিন্দু বাড়িতে ছোট পরিসরে দূর্গা পুজো উৎসব পালিত হচ্ছে। প্রতিদিন পূজারীরা স্বাস্থ্যবিধি মেনে প্রতিমা দর্শন করছে। আগত দর্শনার্থীরা তার এই প্রতিভা দেখে অবাক হচ্ছে আবার প্রশংসা ও আশীর্বাদ করছে অনেকেই।

জানা যায় ,বান্দরবান জেলার মধ্যমপাড়া ৪নং ওর্য়াডের বাসিন্দা মংমং মার্মা’র ছেলে ক্ষুদে শিল্পী চোচো মার্মা (বাবু)। সে বান্দরবান ডনবস্কো উচ্চ বিদ্যালয়ের ৬ষ্ঠ শ্রেণির ছাত্র। বাবা বান্দরবানে দর্জির কাজ করে।  আরো জানা গেছে, করোনাকালে স্কুল বন্ধ থাকায় খেলার ছলে কয়েকজন বন্ধু মিলে তাদের এক বন্ধু সাগর মল্লিকের ঘরে প্রতিমা তৈরিতে মগ্ন হয়ে পড়ে চোচো মার্মা (বাবু)। ওই বাড়িতেই গড়ে তোলা হয় প্রতিমা তৈরির কারখানা। তাদের তৈরি মূর্তি তার বন্ধু সাগর মল্লিক এর “মা” রীনা মল্লিকের নজর কাড়ে। ছেলেদের এই মহৎ কাজকে বাধা না দিয়ে বরং তাদের এই উদ্যোগকে উৎসাহিত করেন তিনি, আর যথারীতি ধর্মীয় রীতিনীতি অনুযায়ী চলছে দুর্গাপূজা।

প্রতিমা তৈরির ব্যাপারে জানতে চাইলে ক্ষুদে শিল্পী চোচো মার্মা (বাবু) বলে, এর আগে গতবছর বান্দরবানের ঐহিত্যবাহী রাজার মাঠে হিন্দুদের কালীপূজা আর দুর্গাপূজার সময় প্রতিমা শিল্পীরা বিভিন্ন মূর্তি তৈরির কাজ করছে, ওই সময় সে স্কুল যাওয়ার ফাঁকে মনোযোগ সহকারে তাকিয়ে দেখতো সেই কাজ। তাছাড়া মাটি দিয়ে পুতুল,ঘোড়াসহ বিভিন্ন ধরণের মূর্তি তৈরির কাজে অনেকদিন আগে থেকেই তার প্রবল মনোবল ছিল, তখন থেকে তার মনে প্রতিমা তৈরি করার বাসনা জাগে,আর তা বাস্তবে রুপ নিল এবারের পূজায়।

ক্ষুদে শিল্পী আরও বলে,  লেখাপড়ার ফাঁকে বাসার এক কোণায় বসে খেলার ছলে ধীরে ধীরে সেটির ধারণা নিয়ে মূর্তি বানাতে শুরু করি। এবারে করোনার কারণে স্কুল বন্ধ থাকাতে বন্ধুদের নিয়ে  মাটি, খড় ও অন্যান্য প্রয়োজনীয় জিনিস জোগাড় করে মূর্তি তৈরির কাজ করি। অবশ্য আমার বন্ধু সাগর মল্লিকের “মা” রীনা মল্লিক সহযোগিতা করেছেন বলে আমরা প্রতিমা তৈরির কাজ সম্পন্ন করতে পেরেছি। আজ আমি অনেক আনন্দিত, কারণ আমার হাতের ছোঁয়ার প্রতিমা দিয়ে হিন্দু বাড়িতে দুর্গোৎসব হচ্ছে।

পূজারী রীনা মল্লিক বলেন, সারাবিশ্বে করোনা ভাইরাসের প্রাদূর্ভাবের কারণে স্কুল বন্ধ থাকাতে তারা কয়েকজন বন্ধু মিলেই আমার বাড়ির ছোট উঠানে দূর্গা প্রতিমা তৈরির কাজ করতে থাকে। জিজ্ঞেস করার পর জানতে পারলাম যে এই বছর যেহেতু বড় ধরণের পূজামন্ডব হচ্ছে না, তাই তারা বাড়িতে দূর্গা উৎসব উদযাপন করার জন্য আবদার চেয়ে বসে। আমি যেহেতু গরীব তাই আশপাশের প্রতিবেশীদের কাছ থেকে অর্থ সংগ্রহ করে ছোট পরিসরে তাদের তৈরি দূর্গাদেবীর পূজা করতে পেরেছি, তাদের এই উদ্যাগকে আমি সাধুবাদ জানাই।

এদিকে ক্ষুদে শিল্পী চোচো মার্মা (বাবু) এর অনিন্দ্য সুন্দর প্রতিমা তৈরিকে স্থানীয় বাসিন্দারা আনন্দের সাথে উপভোগ করছে এবং তাকে উন্নত কারিগরি প্রশিক্ষণ প্রদান করলে একজন বড়মাপের শিল্পি হিসেবে জেলায় পরিচিত হবে বলে আশাবাদ স্থানীয় সুশীল সমাজের।


বান্দরবান |  আরও খবর
এইমাত্র পাওয়া
আর্কাইভ
সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত, ২০১৭-২০১৮।    Design & developed by: Ribeng IT Solutions