বাঘাইছড়িতে আবারো সাংবাদিক পরিবারের জায়গা দখলে নেয়ার চেষ্টা

প্রকাশঃ ০১ জুলাই, ২০২০ ১০:৪৫:০৬ | আপডেটঃ ২৫ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ১০:৫৬:৫৫
সিএইচটি টুডে ডট কম, রাঙামাটি। দেশের প্রচারবহুল যমুনা টেলিভিশনের রাঙামাটি জেলা প্রতিনিধি ফজলুর রহমান রাজন পরিবারের নিজস্ব জায়গা দখলের চেষ্টা চালাচ্ছে দখলবাজরা। জায়গাটির অবস্থান জেলার বাঘাইছড়ি উপজেলা সদরে। স্থানীয়রা বিষয়টির সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

জানা যায়, যমুনা টেলিভিশনের জেলা প্রতিনিধি ও রাঙামাটি রিপোর্টার্স ইউনিটির সাধারণ ফজলুর রহমান রাজনের বাবার নামে রেকর্ডীয় তাদের পিতৃসম্পত্তির জায়গাটি দখলে নিতে দীর্ঘদিন ধরে চেষ্টা চালাচ্ছে স্থানীয় কতিপয় দখলবাজ।  রাজনের বড়ভাই জাকির হোসেন গং নামে স্থাপন করা সাইন বোর্ডটি তুলে নিয়ে বুধবার বিকালে জায়গাটি দখল করার চেষ্টা চালান, স্থানীয় মোমিনুল ইসলামের স্ত্রী হাজেরা খাতুন, তার ছেলে কামরুল হাসান সোহাগ ও তাদের সহযোগী মিলন ধরের ছেলে সঞ্জয় ধর। সর্বশেষ তাদের বিরুদ্ধে বাদী হয়ে মামলা করেছিলেন, রাজনের বড়ভাই মো. জাকির হোসেন।

জাকির হোসেন বলেন, ১৯৯৬ সালে আমার বাবা ২৮ শতক জায়গা কিনে রেকর্ডভূক্ত করেছিলেন। ১৯৯৭ সালে সাবেক  ইউপি সেক্রেটারি মোমিনুল ইসলামের স্ত্রী হাজেরা খাতুনের নামে  ৭ দশমিক ৫শতক জায়গা বিক্রি করে দেন বাবা। সেই জায়গার চৌহাদ্দিমূলে দীর্ঘ ২২-২৩ বছর যাবৎ হাজেরা খাতুন বসবাস করে আসছেন। আমার বাবা থেকে হাজেরা খাতুনের কেনা ও তার ভোগ দখলীয় জায়গার বিবিধ (মামলা নম্বর- ১৭৯(ডি) ২০১৭-২০১৮(৩৭৮) মৌজা আদালত মূলে জেলা প্রশাসকের ২৯-৩-২০১৮ তারিখে অনুমোদনক্রমে ৪০৮/৬০০ নম্বর হোল্ডিং হতে রেজিষ্টেরি করেন। ২০১৮ সালের ২৮ অক্টোবর আমাদের রেকর্ডীয় জায়গাটি পিকনিকের নাম করে দখল করে হাজেরা খাতুনের ছেলে কামরুল হাসান সোহাগ ও মিলন ধরের ছেলে সঞ্জয় ধর। এরপর স্থানীয়দের সহায়তায় জায়গা দখল নিলেও গত ২৯ জুন আমরা আমাদের রেকর্ডীয় জায়গায় ঘেরা বেড়া দিতে গেলে হাজেরা খাতুন গং আমাদের গায়ে মরিচের পানি ঢেলে দেন এবং ধারালো ছুরি নিয়ে  হামলার চেষ্টা করেন।

হাজেরা বেগম ও মোমিনুল হক নিজেরা গত ২৪ তারিখ অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেটের আদালতে স্থিতিবস্থা চেয়ে আবেদন করে, আদালত থেকে সেটি ২৯ জুন সংশ্লিষ্ট থানায় পাঠানো হয়, কিন্তু ১লা জুলাই বিকালে তারা নিজেরাই আদালতের নির্দেশনা অমান্য করে সাইন বোর্ড ফেলে দেয় এবং ঘেরা বেড়া ভাংচুরের চেষ্টা চালায়।



                                                এই সাইন বোডর্টি ফেলে দিয়ে জায়গা দখলের চেষ্টা চালায় মোমিন ও সঞ্জয় গং রা

এদিকে ক্ষমতাসীন দলের সাইন বোর্ড ব্যবহার করে  হাজেরা বেগমের পরিবারকে উস্কানি দিয়ে জায়গাটি দখলের পায়তার করছে সাবেক ছাত্রলীগ নেতা সঞ্জয় ধর, এর আগেও তারা চেষ্টা করেছিলো। সম্প্রতি গত মাসে কাচালং বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রবেশমুখের আগে জালাল উদ্দিন ও মহিউদ্দিন দুই ভাইয়ের ৩৪ শতক রেজিষ্ট্রেকৃত ৩৪ শতক জায়গা দখলের চেষ্টা চালায় সঞ্জয় গংরা, উপজেলা প্রশাসন ও পুলিশী বাঁধার কারনে সেটি সফল হয়নি।
বর্তমানে সাংবাদিক রাজন পরিবারের বিরুদ্ধে থানা মামলা করে নিজেই আবার এক নম্বর সাক্ষী সেজেছে এই সঞ্জয়।  


এ ব্যাপারে জানতে যোগাযোগ করার চেষ্টা করলে হাজেরা খাতুনের স্বামী মোমিনুল ইসলামকে ফোনে পাওয়া যায়নি। এরপর যোগাযোগ করলে মিলন ধরের ছেলে সঞ্জয় ধর বলেন, ভুল নম্বরে ফোন দেয়া হয়েছে।


বাঘাইছড়ি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এমএ মঞ্জুর বলেন, জায়গাটি নিয়ে দীর্ঘ দিন ধরে সমস্যা রয়েছে। উভয় পক্ষ থানায় মামলা করেছে। উভয়ের মামলা আমলে নেয়া হয়েছে। স্থানীয়ভাবে বসে সমাধানের চেষ্টা করা হবে।