সোমবার | ২৬ অগাস্ট, ২০১৯

ভারতের দাদুর বাড়ি বেড়াতে গিয়ে প্রাণ হারাল বরকলের রুপালি

প্রকাশঃ ১৯ এপ্রিল, ২০১৯ ১০:২৭:২৩ | আপডেটঃ ২৫ অগাস্ট, ২০১৯ ০৭:৫৯:৩১
সিএইচটি টুডে ডট কম, রাঙামাটি। ভারতের মিজোরাম রাজ্যের দাদুর বাড়ি বেড়াতে গিয়ে প্রাণ হারাল রুপালি চাকমা (২০) নামে রাঙামাটির বরকলের এক যুবতী। ১২ এপ্রিল মিজোরামের বড়পনছড়ি থানার হুরোল হাবাছড়া নামক গ্রামে ঘটনাটি ঘটে।

রুপালি চাকমা বরকল উপজেলার আইমাছড়া ইউনিয়নের পেরাছড়া গ্রামের বাসিন্দা গুরি মরত্তো চাকমার মেয়ে। সে সদ্য বিঝু উৎসবে তার দাদু মদন মুনি চাকমার বাড়িতে বেড়াতে যায়। এদিকে তার মা, বাবা ও আত্মীয় স্বজনরা রুপালি চাকমার লাশ দাবি করলেও পাঠানো হয়নি। ভারতের ওই গ্রামে লাশ দাহ করা হয়েছে বলে জানা গেছে।

রুপালির পারিবার ও স্বজনরা জানান, পাহাড়িদের প্রধান সামাজিক উৎসব বিঝুর দুই দিন আগে তার দাদুর বাড়ি বেড়াতে যায় রুপালি। এরপর উৎসবের প্রথম দিন ১২ এপ্রিল সকালে ভারতের ওই গ্রামের বৌদ্ধ বিহারের পাশে একটি গাছে ঝুলন্ত অবস্থায় রুপালির গলায় ফাঁস লাগানো লাশ পাওয়া যায়।

ফোনে যোগাযোগ করা হলে রুপালির দাদু মদন মুনি চাকমা জানান, ফুলবিঝুর আগের রাতে বাড়ির সবাই ঘুমিয়ে পড়ি। সকালে নাতনি রুপালিকে বাড়িতে পাওয়া যায়নি। পরে খোঁজাখুঁজির এক পর্যায়ে বৌদ্ধ বিহারের পাশের জঙ্গলে একটি গাছে ঝুলন্ত অবস্থায় রুপালির লাশ পাওয়া যায়। লাশটি পাওয়ার পর পুরো এলাকায় এক হ্নদয় বিদারক পরিবেশ সৃষ্টি হয়। রুপালির রহস্যজনক মৃত্যু নিয়ে সীমান্তের এপাড় ওপাড়ের লোকজনের মধ্যে চাপা ক্ষোভ ও উত্তেজনা বিরাজ করছে বলে জানা গেছে।

এদিকে মেয়ের মৃত্যুর শোকে পাগাল প্রায় রুপালি চাকমার বাবা গুরি মরত্তো চাকমা ও তার স্ত্রী। তারা বলেন, ওইখানে তাদের মেয়ে রুপালির কারও সঙ্গে কোনো বিবাদ নেই। সে কখনও আত্মহত্যা করতে পারে না। তাকে হত্যা করা হয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে, ধর্ষণের পর রুপালিকে হত্যা করে আত্মহত্যার নাটক সাজানোর চেষ্টা করা হচ্ছে।
ঘটনার বিষয়টি জেনেছেন উল্লেখ করে বরকল মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মফজল আহম্মদ খান বলেন, এ ব্যাপারে থানায় গিয়ে কেউ লিখিতভাবে জানায়নি। কোনো রকম অভিযোগ বা মামলাও করেনি কেউ।

রাঙামাটি |  আরও খবর
এইমাত্র পাওয়া
আর্কাইভ
সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত, ২০১৭-২০১৮।    Design & developed by: Ribeng IT Solutions